বৃহস্পতিবার ২৫ ফেব্রুয়ারি ২০২১, ১২ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
◈ মোহনপুরে করোনা ভাইরাস প্রতিরোধে গণ সচেতনতা মূলক প্রচার অভিযান ◈ রাজশাহী বিভাগের ১২ পৌরসভার মেয়র ও কাউন্সিলগণ শপথ নিলেন ◈ গোদাগাড়ীতে আধুনিক প্রযুক্তি সম্প্রসারণে দুইদিন ব্যাপী কৃষক প্রশিক্ষণ ◈ মোহনপুরে এসপির নামে ফোন করে সার্জেন্ট এর সাথে প্রতারণা ◈ সিরাজগঞ্জে বাস ট্রাক সংঘর্ষে ৫ জন নিহত ◈ মহাদেবপুরের আশ্রয প্রকল্প পরিদর্শন করলেন বিভাগীয কমিশনার ◈ নওগাঁয় মুজিব শতবর্ষ উপলক্ষে ডিজিটাল ম্যারাথনের উদ্বোধন ◈ বহুপ্রতিক্ষার পর অবশেষে শুরু হয়েছে খাসের হাট বাজারের জলাবদ্ধতা নিরসনে খাল খনন কাজ ◈ বাগমারায় আবাদি জমির মাটি যাচ্ছে ইটভাটায়, চলছে পুকুর খননের হিরিক প্রশাসন নীরব ◈ রাজশাহী গোদাগাড়ীতে ৯৮৫ পিচ ইয়াবাসহ গ্রেফতার ১

নাটোরের আলোচিত সাধন হত্যা মামলা থেকে বাঁচতে আসামীদের পুলিশের উপর দোষারোপ

প্রকাশিত : ০৪:৩৩ অপরাহ্ণ, ২৭ ডিসেম্বর ২০২০ রবিবার ৪৫ বার পঠিত

দৈনিক সত্যের সন্ধান নিউজ ডেক্স, :

মাজহারুল ইসলাম চপল, রাজশাহীঃ

নাটোরের বাগাতিপাড়া উপজেলার পাঁকা এলাকার আলোচিত সেই স্বাধন হত্যা মামলার আসামীরা দীর্ঘদিন থেকে নিজেদের অাড়াল করে রাখলেও বর্তমানে মামলা থেকে বাঁচাতে তদন্তকারি পুলিশ কর্মকর্তাকে দোষারোপ করাসহ নানা করসাজি করছে।
২০১৫ সালের ৩০ নভেম্বরের ভোরে রাজশাহী জেলাধীন বাঘা থানার লোকমানপুর ও আড়ানী রেল ষ্টেশনের মধ্যে ঝিনা মৌজার রেল লাইনের উত্তর পাশ থেকে বিশিষ্ট্য জুয়েলার্স ব্যবসায়ী স্বাধন কর্মকারের মরদেহ উদ্ধার করে থানা পুলিশ। পরে স্বাধন কর্মকারের বড়ভাই শ্রী সন্তোস কুমার কর্মকার বাদী হয়ে পাবনার ঈশ্বর্দী রেলওয়ে থানার হত্যা মামলা দায়ের করেন। যার মামলা নং -০১, তাং- ০১/১২/২০১৫ খ্রিঃ ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড।

মামলার এজাহারের বিবরণ অনুযায়ী অনুসন্ধানে নামে পুলিশ প্রশাসনের একাধিক সংস্থা।
চৌহদ্দি নির্নয় করেন বাদী ও সাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদ করে তাহাদের জবানবন্দী, কাঃ বিঃ ১৬১ ধারা মোতাবেক লিপিবদ্ধ করেন। তদন্ত কালে মামলাটি সিআইডি সিডিউল ভুক্ত হওয়ায় পুলিশ হেডকোয়াটার্সের অনুমোদন সাপেক্ষে সিআইডি রাজশাহী বিভাগ, রাজশাহী স্মারক নং-সিএ/রাজশাহী/পুঃহেঃ কোঃ/৭-১৬/৮৫ তারিখঃ ৭/০৪/২০১৬খ্রিঃ মোতাবেক তদন্তভার পুলিশ পরিদর্শক জনাব খন্দকার ফেরদৌস আহম্মেদ সিআইডি জেলা পাবনার নিকট অর্পন করেন। মামলার অগ্রগতি না হওয়ায় ১৮ সালের ১২ জুন মামলাটির তদন্তভার আসে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন ( পিবিআই) এর হাতে। পিবিআই এর চক্ষুস অফিসার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার আবুল কালাম আজাদ মামলাটির তদন্তভার দেন উপ-পরিদর্শক সাইদুর রহমানের উপর। তদন্তকারী এই পুলিশ কর্মকর্তা নিবিড় পর্যবেক্ষন ও অনুসন্ধানে সন্দেহজনক ৫ জনকে গ্রেফতার করে এবং ১৬৪ ধারায় জবানবন্দী রেকর্ড করেন। গ্রেফতারকৃত আসামীদের জবানবন্দী অনুযায়ী ভিক্টিম স্বাধন কর্মকারের হত্যার স্বীকারুক্তিসহ ১৭ জনের নাম উল্লেখ করেন। জবানবন্দী দেওয়া তথ্য অনুযায়ী আসামীদের গ্রেফতারের প্রক্রিয়া শুরু করতে না করতে আসামীগন বাঁচার তাগিতে অসৎ পথ ও নানা কৌশল অবলম্বন শুরু করেন। এমন কি আসামীরা পিবিআই এর উপ-পরিদর্শক সাইদুর রহমানের উপর মিথ্যে অপবাদ দিতে শুরু করেন। এছাড়াও আসামীরা এলাকার সাধারণ মানুষকে বিশেষ সুবিধা দিয়ে উসকে দিচ্ছে বলে অভিযোগ উছেঠে।
এবিষয়ে পিবিআই এর উপ-পরিদর্শক সাইদুর রহমানের সাথে মুঠোফোনে জানতে চাইলে তিনি বলেন, যেদিন থেকে পুলিশে যোগদান করেছি সেদিন থেকে শপথ করেছি দেশ ও দেশের মানুষের কল্যানে কাজ করবো। তাই আমার নিকট মিথ্যার কোন জায়গা নাই আর অপরাধীর কোন ছাড় নাই। তবে এই মামলার বিষয়ে গভীর অনুন্ধান ও সোর্সের তথ্য অনুযায়ী ৫ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। এই মামলায় মোট ১৭ জনকে আসামী করা হয়েছে। বাঁকী আসামীরা আইনের আওতায় আসবে ইনশাআল্লাহ। আলোচিত এই মামলার বিষয়ে পিবিআই এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জনাব আবুল কালাম আজাদ এর সাথে কথা বললে তিনি বলেন, দেশের সবচেয়ে জটিল ও ক্লুলেস মামলাগুলো পিবিআই করে। পিবিআই পুলিশ কাউকে অযথা হয়রানি করেনা। মামলার ধরন দেখে আমি যোগ্য অফিসারের হাতে মামলা দেয়। আমি জানি আমার আফিসারগন সৎ ও যোগ্য তাই আমার অফিসারের উপর মিথ্যা অপবাদ দিয়ে লাভ হবেনা। এতে করে মামলার মোড় ঘোরানো যাবেনা। খুব অচিরেই এই মামলার বাঁকী আসামীদের আইনের আওতায় আনা হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক সত্যের সন্ধান'কে জানাতে ই-মেইল করুন- sattersandhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক সত্যের সন্ধান'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক সত্যের সন্ধান | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT