শনিবার ১৬ জানুয়ারি ২০২১, ২রা মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

শিরোনাম
◈ কেশরহাটে নৌকার প্রচার মিছিল ছাত্রলীগের : জামাত-বিএনপিকে হুশিয়ারী ! ◈ রাত পোহালেই কাকানহাট পৌরসভার ভোটযুদ্ধ, লড়াই হবে ইভিএমে ◈ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ছুটি বাড়লো ৩০ জানুয়ারি পর্যন্ত ◈ সাংবাদিক হিলালীর মৃত্যুতে রাজশাহী প্রেসক্লাবের শোক ◈ চাঁপাইনবাবগঞ্জের বিভিন্ন স্থানে কম্বল বিতরণ করলেন বেটার চাঁপাইনবাবগঞ্জ (বিসি) ◈ চাঁপাইনবাবগঞ্জের শিবগঞ্জ পৌরসভা নির্বাচনে নৌকার মাঝি হলেন সৈয়দ মনিরুল ইসলাম ◈ আদিবাসী জনগোষ্ঠী আর পিছিয়ে পড়া নয় ◈ রাজশাহী তানোর পৌরসভা নির্বাচনে আবারও নৌকার প্রার্থী ইমরুল ◈ বাগমারা উপজেলায় তাহেরপুর পৌরসভায় আবার ও নৌকার মাঝি হলেন অধ্যক্ষ আবুল কালাম আজাদ ◈ কৌশলে এগিয়ে বিএনপি আড়ানী পৌর নির্বাচনে!

বিবাহ ব্যবসা” ললনাদের ভিন্ন পন্থা, মোটা অঙ্কের দেনমোহর বিচ্ছেদ,টাকা আদায় ও বাটোয়ারা

প্রকাশিত : ০৪:১২ অপরাহ্ণ, ২৭ ডিসেম্বর ২০২০ রবিবার ৩৫ বার পঠিত

দৈনিক সত্যের সন্ধান নিউজ ডেক্স, :

মোঃ মাইনুর রহমান মিন্টু:

বাংলাদেশে অন্যান্য যে কোন সময়ের চেয়ে বর্তমানে বিবাহ বিচ্ছেদের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে তা বলাই বাহুল্য।এর পেছনে অনেক কারন থাকলেও একটি কারণ ক্রাইম নিউজ ২৪.নেট এর অনুসন্ধানী প্রতিবেদনে উঠে আসে যা শুনলে অনেকে চমকে উঠবেন।বিবাহ ব্যাবসা শব্দটি হয়ত শুনতে খারাপ লাগবে।কিন্ত ভোগবাদী অর্থনীতির একমুখী বিশ্ব ব্যাবস্থার এই যুগে উচ্চাভিলাসী,অতি আধুনিক,নারী পুরুষের সমান অধিকার যায় বলুন না কেন পরাজিত হয়েছে মানবিকতা।

রাজশাহী মহানগরী সহ দেশের প্রতিটি জেলায় পাড়া মহল্লায় এক শ্রেণীর সুন্দরী নারীরা ধনী ব্যক্তি টার্গেট করে ১০/২০ লক্ষ্ টাকা দেনমোহর ধার্য্যে বিবাহ করছে এবং কিছুদিন পর ডিভোর্স দিয়ে আদালতের মাধ্যমে দেনমোহ রের টাকা আদায় করছে,বা দিতে বাধ্য করছে। তখন দেখা যাচ্ছে সে একা নয়, সুসংগঠিত একটি দল কাজ করছে তার সাথে।ঘটক থেকে শুরু করে এদের মধ্যে পাতি নেতা সহ অনেকেই এই সব ললনাদের সহযোগিতা করে থাকে। সুনিল গঙ্গোপাধ্যায় এর ভাষায় বলতে হয় লীলার লোভ সকলের আছে।

দেশের প্রায় বিপুল সংখ্যক নারী জনসংখ্যার মাঝে বিবাহ যোগ্য নারীদের সংখ্যা অত্যধিক বৃদ্ধি পাচ্ছে কোন সন্দেহ নেই।পাশাপাশি কমছে বিবাহ যোগ্য পুরুষের সংখ্যা।পুরুষদের সাবলম্বী হতে সময় লাগে বা মাদকে জড়িয়ে পড়ছে। পক্ষান্তরে নারীদের যৌবনের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে দ্রুত বলে অনুসন্ধানে বেরিয়ে এসেছে।এবং এরফল স্বরূপ দেখা যাচ্ছে তথা কথিত আধুনিকতার নামে সুন্দরীরা চালাচ্ছে অবাধ যৌনাচার।এদের মিলি,লিলি,বৃষ্টি,ঝর্না নাম যায় হোক সেটা ছদ্দ নাম।এরা কি বারবনিতার পর্যায়ে পড়ে না?

বিবাহ বিচ্ছেদের সংখ্যা বৃদ্ধি।এখানে কিছু উচ্চাভিলাসী সুন্দরী নারী নিজেদের সুন্দর্যের ফাঁদে ফেলে কিছু বিত্তশালীদের টার্গেট করে প্রথমে প্রেম, পরে বিবাহ ।
কিছুদিন যেতে না যেতেই ডিভোর্স অবশেষে দেনমোহর আদায়।ততক্ষনে পাত্র বুঝে গেছে এরা একা নয়।এদের একটি গ্রুপ আছে এবং সমাজের উচু উচু স্তরে বেশ বন্ধুত্বও আছে।এরা এসি গাড়িতে গভীর রাত্রে যাচ্ছে কোথাও রাত্রি যাপনে মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে।উন্নত ফ্যাশন এর নামে নারীদের বহুগামিতা কখনও কোন সমাজের উপকারে আসে না।সমান অধিকার এর নামে চলছে যৌনতা। অথচ আমরা অনেকেই নিজেদের মুসলিম দাবী করি।এই প্রসঙ্গে উল্লেখ্য যে কিছুদিন পূর্বে সার্কিট হাউজে র সামনে তরুণীর ধূমপান।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক রাজশাহীর একজন স্থায়ী বাসিন্দা,প্রথম শ্রেণীর অফিসার জানান “বিত্তের মাঝেই বড় হয়েছি।সুন্দরী নারী বিবাহ করা আমার ইচ্ছার কারণে অবশেষে ঘটনা চক্রে আমি একটি সত্যই সুন্দরীকে পাঁচ লক্ষ্ টাকার উপরে দেনমোহর ধার্যে বিবাহ করি। বিবাহের পর তার জীবন যাপনের অভ্যাস দেখে হতবাক হয়ে পড়ি।ততক্ষনে পানি অনেকদূর গড়িয়ে গেছে।জানতে পারি ড্রাগসে আসক্ত,এবং বিভিন্ন সময় বিভিন্ন জায়গায় রাত্রি যাপনের কথা।ভাগ্যের নির্মম পরিহাস দেনমোহর পরিশোধের পরও মিথ্যা মামলায় হাজত বাস করতে হয়।দিতে হয় ১০/১২ লক্ষ্ টাকাও।যা জীবনে কখনও কল্পনাও করিনি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক উক্ত প্রথম শ্রেণীর অফিসারের প্রশ্ন?এটাও কি বারবনিতার নতুন পন্থা নই?অত্র প্রতিবেদন প্রস্তুতকালে দীর্ঘ দুই মাসের বেশী অনুসন্ধান করে জানা যায় প্রতিটি এলাকায় কিছু বিত্তশালী নারীদের আত্মপ্রকাশ ঘটেছে।রাজশাহীর প্রতিটি পাড়া মহল্লায় একটু চোখ খুলে তাকিয়ে দেখলে জিরো থেকে হিরো এরূপ নারীদের সংখ্যাও কম নয়,সুদের করবার এদের লোক দেখানো।আপনি আমি বলতে গেলে হয় হাসুয়া,পাসলির কোপ খাওয়া র হুমকি,অথবা লাঞ্ছিত অথবা মিথ্যা মামলার শিকার অথবা গুম।
এই যদি হয় নারীদের ক্ষমতায়ন,তাহলে সমাজ চলেছে কোথায়

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি দৈনিক সত্যের সন্ধান'কে জানাতে ই-মেইল করুন- sattersandhan24@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

দৈনিক সত্যের সন্ধান'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। দৈনিক সত্যের সন্ধান | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT